A small weekend trip to Mangalgunj Backpackers’ Villa to experience the jungle stay at “ভাল ভুতের দেশ” and play with millions of fireflies.

গুপী গাইন বাঘা বাইন দেখতে দেখতে সেই ভুতের রাজার জঙ্গলে পৌঁছাতে ইচ্ছে জাগেনি এমন মানুষ,বিশেষত বাঙালি বোধহয় কমই আছে। কিন্তু সত্যি সত্যিই এমন একটা সুযোগ যে পেয়ে যাব এমনটা আশা করিনি। মাসখানেক আগে ব্যাকপ্যাকার্স ক্যাম্পে একটা ঝরঝরে ছুটি কাটাতে গিয়ে এমনই একটা জায়গার সন্ধান পেলাম। মঙ্গলগঞ্জের “ভাল ভুতের দেশ” run by (Izifiso Backpackers)। এমন সুযোগ হাতছাড়া করার কথা ভাবাও যায়না। তাই হুট করে এক শনিবারে চার বন্ধু মিলে বাইক চড়ে পৌঁছে গেলাম। কলকাতা থেকে মাত্র একশ কিলোমিটার দূরে মঙ্গলগঞ্জ (Mangalgunj Backpackers’ Villa)।

Our Bamboo cottages for night stay © Aneek

” এই শহর থেকে অনেক দূরে নয়,কাছেপিঠেই গ্রামের সবুজের মধ্যে হারিয়ে যেতে চান? বিকেলের পড়ন্ত রোদ মেখে নৌকায় ভেসে মাছরাঙার চকিত মৎসশিকারের সাক্ষী হতে চান? গভীর অন্ধকারে হাজার হাজার জোনাকির আলো কি করে নিস্তরঙ্গ নদীর বুকে আলপনা এঁকে দেয় দেখতে চান দুচোখ ভরে?অথবা চা‍ঁদডোবা রাতে ভগ্ন প্রায় কুঠি বাড়ির হলঘরে দাঁড়িয়ে শুনতে চান নীলকর সাহেবদের অত‍্যাচারের নির্মম কাহিনী?অনুভব করতে চান হতভাগ্য নীলচাষীদের দীর্ঘ নিঃশ্বাস কেমন গুমরে মরে নীলকুঠির অলিন্দে দালানে? ঘন্টা খানেকের মধ্যেই পৌঁছে যাবেন জোনাকির রাজ‍্যে!” – Bhaskar Bhattacharya

ভুতের রাজার সাথে সাক্ষাৎ হওয়ার আগে গুপী বাঘাকে থাকা খাওয়ার কথা ভাবতে হয়েছিল বটে, কিন্তু আমাদের সে ঝক্কি নেই। Izifiso-র ব্যাকপ্যাকার্স হন্টেড ভিলাতে পরিপাটি সব ব্যবস্থা।

Similar way they prepare Bamboo chicken.

“ঝিঝিপোকার-ডাকে-মুখর জ্যোৎস্নালোকিত ঘুমন্ত রাত্রে অনেক দূর পর্যন্ত যেন সে দেখতে পাচ্চে। জীবনের কত দূরের পথ। রাজারাম সকালে উঠেই ঘোড়া করে নীলকুঠিতে চলে গেলেন। নীলকুঠি যাবার পথটি ছায়াস্নিগ্ধ, বনের লতাপাতায় শুষ্ঠামল। যঞ্জিভুমুৱা গাছের ডালে পাখীর দল ডাকচে কিচ কিচ করে, জ্যৈষ্ঠের শেষে এখনো ঝাড়-ঝাড় সোদালি ফুল মাঠের ধারে । নীলকুঠির ঘরগুলি ইছামতী নদীর ধারেই । বড় থামওয়ালা সাদা কুঠিঠা বড়সাহেব শিপটনের” – কথাসাহিত্যিক বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়

কাটা সাহেবের ( বড়সাহেব শিপটনের ) কুঠি © Izifiso Tours Private Limited

বাঁশবনের মধ্যে বাঁশের তৈরি ছোট্ট ভুতুড়ে ক্যাম্প। চারদিকে শিমুল পলাশের লাল। সকাল সকাল জায়গাটার নিরিবিলি তে মনটা ভরে গেল ঠিকই কিন্তু রাতের অন্ধকারে এ জায়গা কেমন গা ছমছমে হবে তার আন্দাজ ও পাচ্ছিলাম। খাওয়া দাওয়া সেরে বেরিয়ে পড়লাম ভুতের ঠিকানার উদ্দেশ্যে। চারদিকে জঙ্গলে ঘেরা এক ফালি জায়গায় খোদ কাটা সাহেবের কুঠি। এই কুঠির ইতিহাসে অনেক অধ্যায়। মঙ্গল রাজা বানিয়ে ছিলেন এই কুঠি। ব্রিটিশ আমলে এই কুঠি হল নীল কুঠি। নীল চাষিদের ওপর অকথ্য অত্যাচারের সাক্ষী হয়ে আছে এই কুঠির ভাঙ্গা দেওয়াল। তারপর এল স্বদেশীরা। তাদের জীবন মরন মুক্তি যুদ্ধেরও ইতিহাস লেখা কুঠির গায়ে। এত মানুষের বাঁচা মরা জড়ানো এই মৃতপ্রায় কুঠি যে এখন ভুতের ঠিকানা সে আর আশ্চর্য কি।

অশোকদা আর জয়দেবের সাথে পৌঁছে গেলাম কাটা সাহেবের কুঠি © Aneek

মঙ্গলগঞ্জ ক্যাম্পের সামনে আছে একটা বাঁশ বাগান, সকাল বেলা অশোক (Caretaker) আমাকে বল্লো , ওই বাঁশ বাগানে নাকি গতকাল ও একটা পাখি দেখেছিল, পাখি টা নাকি, মাটিতে পড়েথাকা বাঁশ পাতার উপর ডিম পেরে তা দিচ্ছিল।এই কথা শোনা মাত্রই, অশোক কে অনুরোধ করলাম জায়গাটা একটু দেখিয়ে দিতে, বাঁশ পাতার উপর দিয়ে পা টিপে টিপে মিনিট ২এক এগিয়ে গিয়ে অশোক বল্লো, “ওইযে দেখুন”, সত্যি বলতে এদিকে ওদিক তাকিয়েও, কিছুই যেন নজরে পরল না, তখন আশোক আমাকে আরেকটু এগিয়ে আসতে অনুরোধ করলো, আঙুল দিয়ে দেখালো, ” ওইযে ভালো করে লক্ষ করুন ” হ্যাঁ অবাক হয়ে দেখতে থাকলাম, চোখ-ঠোঁট-পাখনা একটু একটু করে সব যেন চোখের সামনে ভেসে উঠলো। – Suvo Dey

Ichamati River – Right place to experience Fireflies migration during monsoon. © Izifiso Tours Private Limited

আর শুনলাম সেই শিমুল গাছের গল্প, যেখান থেকে মাঝে মাঝেই নাকি ছোট বাচ্চাদের আওয়াজ ভেসে আসে। রাতে সেখানে যাওয়ার সাহস করতে পারব কিনা জানিনা তাই সূর্যের আলো থাকতেই দেখে এলাম সেই গাছ। রাত বাড়তেই জায়গাটার নিস্তব্ধতায় কেমন একটা গা শিরশির করা ভাব টের পাচ্ছিলাম। কিন্তু রাতের অন্ধকারে কাটা সাহেবের কুঠি র অশরিরী রূপ যে না দেখলেই নয়। তাই অশোকদা আর জয়দেবের সাথে পৌঁছে গেলাম সেখানে। তখন রাত আটটা। তবে আমায় কেউ রাত তিনটে বললেও নিশ্চয়ই বিশ্বাস করে নিতাম। চারদিকে একটানা ঝিঁঝিঁ পোকার ডাক, বাদুড় চামচিকের ডানার ঝটপট আর বাঁশবনের ভেতর দিয়ে হাওয়ার শব্দের মাঝে ভাঙ্গা কুঠির সেই অশরিরী রূপ মনে যে হাড় হিম করা ভয় ঢুকিয়েছিল সেটা ঠিক সেখানে না দাঁড়ালে বোঝানো যায়না। বারবার মনে হচ্ছিল এখন যদি সত্যিই ভুতের আবির্ভাব হয় তাহলে আমার ইতিহাসটা কেমন হবে।।

For more details contact Izifiso  (7980514477 / 9836505038 )
Villa charges 1400/- per head and Family tents charges 1200/- per head including stay, food, campfire, mineral water and Night walk at Kata Saheber Kuthi. 
Nearest Railway Station : Chakdah and Bongaon
Distance from Kolkata : 100 Km
For booking visit Mangalgunj Backpackers’ Villa – Haunted Camping